কারাগারে খালেদা,গুরুত্বপূর্ণ সিদ্ধান্ত আসছে আইএসআই থেকে

0
2
জিয়া এতিমখানা দুর্নীতির মামলায় বিএনপি চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়া কারাগারে থাকায় দলের গুরুত্বপূর্ণ সিদ্ধান্তগুলো আসছে বিএনপির ঘনিষ্ট মিত্র পাকিস্তানের গোয়েন্দা সংস্থা আইএসআই-এর সদরদপ্তর থেকে। আইএসআই বিষয়ে এমন চাঞ্চল্যকর তথ্য উঠে এসেছে বিদেশী একটি প্রভাবশালী গোয়েন্দা প্রতিবেদনে। বাংলাদেশ দূতাবাসে পাঠানো ওই গোয়েন্দা সংস্থা’র এক প্রতিবেদনে একথা বলা হয়েছে। প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ‘যুক্তরাজ্যে অবস্থানরত দলটির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যানের নিয়মিত পাকিস্তানি গোয়েন্দাদের সঙ্গে বৈঠক করছেন এবং তাদের নির্দেশনাগুলোই দলের নেতাদের জানাচ্ছেন।’
আগামী নির্বাচনে ভারতের সহযোগীতা পাবে না ধরে নিয়ে বিএনপি অধিক পরিমাণে পাকিস্তানের গোয়েন্দা সংস্থা আইএসআই-এর উপর নির্ভরশীল হয়ে পড়েছে। বিএনপি চেয়ারপার্সন দুর্র্নীতির দায়ে কারাগারে যাওয়ার পর থেকে তারেক রহমান পুরোপুরি পাকিস্তান মুখি হয়েছে। তারেকের ঘনিষ্টজনেরা জানিয়েছেন, এই মুহূর্তে তারেক রহমানসহ বিএনপি ভাবছে তাদেও এতমাত্র ত্রাতা আইএসআই। যদি বাংলাদেশের সরকারের বিরুদ্ধে কোন কিছু করতে পারে তা একমাত্র আইএসআই-ই করতে পারবে এমন বদ্ধমূল ধারণাও তৈরী হয়েছে দলটির বর্তমান হাইকমান্ডের কাছে।
বিএনপির সিনিয়র নেতারা মনে করছেন, স্থির থাকলে এবার সাফল্যও পাবা যাবে। সিনিয়র নেতা। তবে বিএনরি সিনিয়র নেতাদের এমন ধারণার সঙ্গে দেশের বেশ কয়েকজন পেশাজীবী একমত হতে পারেননি। তাদের মতে, তারেক রহমানের সহিংস মনোভাব পরিত্যাগ করে সুস্থ রাজনীতি করা উচিত। আর তা না হলে বিএনপি এবার সব কূল হারাবে।
গত বৃহস্পতিবার গুলশানে বিএনপির চেয়ারপারসনের কার্যালয়ে বিএনপির নেতৃবৃন্দ বিভিন্ন পেশাজীবীদের সঙ্গে বৈঠক করেন। ওই বৈঠকেও তারেক জিয়া টেলিফোনে দীর্ঘ বক্তৃতা দেন। উপস্থিত পেশাজীবী নেতৃবৃন্দও তারেকের বক্তৃতায় বিব্রত হয়েছেন।
নাম প্রকাশ না করার শর্তে বৈঠকে উপস্থিত একজন পেশাজীবী নেতা বলেছেন, ‘হাইকোর্টের আদেশ আছে যে তারেক জিয়ার কোনো বক্তব্য প্রচার করা যাবে না। এখন হাইকোর্টের আদেশ অমান্য করায় যদি আমাদের বিরুদ্ধে মামলা হয় তাহলে কী হবে?’ তিনি জানান, তারেকের কথায় স্পষ্ট হয়েছে যে, বিএনপি যদি আবার ক্ষমতায় আসে তবে এবার তিনি ভারতের ব্যাপারে কঠোর মনোভাবই দেখাবেন।

 

comments

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here