তারেকপন্থীদের হাতে নাজেহাল হচ্ছেন বিএনপির সিনিয়র নেতারা

0
2
বেগম খালেদা জিয়া এতিমের টাকা আত্মসাতের মামলায় কারাগারে যাওয়ার পর তারেক রহমান দলে নিজের কর্তৃত্ব নিরুঙ্কুশ করতে উঠে পড়ে লেগেছেন। এই কাজে তাকে সাহায্য করছেন তারেকপন্থী বলে পরিচিত দলের অপেক্ষাকৃত তরুণ নেতারা।
এই কাজ করতে যেয়ে দলের মধ্যে আপাতদৃষ্টিতে বাইরে থেকে ঐক্য দেখা গেলেও ফাটল ধরেছে ভয়াবহভাবে। কারণ তারেক রহমান নিজের একক কর্তৃত্ব প্রতিষ্ঠা করতে গিয়ে সিনিয়র নেতাদের সাথে তার মতবিরোধ তুঙ্গে উঠেছে।
দলের সিনিয়র নেতারা নিয়মতান্ত্রিক আন্দোলন করে সফলতা আনতে চাচ্ছেন। অন্যদিকে তারেক রহমানের চাওয়া এবার ফাইনাল গেম খেলার। এই কারণে তিনি তার অনুসারীদের দিয়ে সর্বোচ্চ শক্তি প্রয়োগের জন্য প্রস্তুতি নিয়েছিলেন। কিন্তু সিনিয়র নেতারা তারেকের এই কথাকে পাত্তা দেননি।
খালেদার মুক্তি আন্দোলন বেগবান করতে বিভিন্ন কর্মসূচির মধ্যে ১৪ ফেব্রুয়ারী জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে প্রতীকী অনশনের আয়োজন করেছিল বিএনপি। সেখানে বিএনপির অঙ্গসংগঠন থেকে শুরু করে সর্বস্তরের  কয়েক হাজার নেতা-কর্মী উপস্থিত হয়। এর মধ্যে তারেক রহমানের অনুসারীর সংখ্যাই ছিল বেশি। অনশন করার কথা ছিল সকাল ১০টা থেকে শুরু করে বিকেল ৫টা পর্যন্ত। কিন্তু তারেক অনুসারী নেতারা এমন নির্বিষ আন্দোলন পছন্দ না করায় সিনিয়র নেতাদের সামনে তাদেরকে তিরস্কার করলে দ্রুত তারা অনশন কর্মসূচি শেষ করতে বাধ্য হয়।
সংবাদ সংগ্রহ করতে গেলে একাধিক গণমাধ্যম কর্মীর দৃষ্টিগোচর হয় বিএনপির সিনিয়র-জুনিয়র নেতাদের এই দ্বন্দ্ব। তারেক অনুসারী অপেক্ষাকৃত জুনিয়র নেতারা সেদিন সিনিয়র নেতাদের উদ্দেশ্যে খুব আপত্তিকর এবং অশ্লীল ভাষায় তীব্র আক্রমণ করে। তারা বলতে থাতে এতদিন রাস্তায় না নেমে এখন কেন রাস্তায় তারা? ছাত্রদল ও যুবদলের অনেক নেতাকে সিনিয়র নেতাদেরকে বলতে শোনা গেছে, ‘…তোমরা এখানে কি … ছিড়তে আসছো? যাও বাসায় যেয়ে বউয়ের আচল ধরে বসে থাকো।’
১৪ তারিখের অনশন বিকেল ৫টা পর্যন্ত চলার থাকলেও অবস্থা বেগতিক দেখে বিএনপির সিনিয়র নেতারা কেউই বেশিক্ষণ থাকেননি। সবাই এসে ২-৩ মিনিট বক্তব্য রেখেই চলে গেছেন। দুপুর ১২টার দিকে হঠাৎ সিদ্ধান্ত হয় অনশন ভাঙ্গা হবে। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক উপাচার্য অধ্যাপক এমাজউদ্দিন আহমেদ এসে অনশন ভাঙ্গান তখন। যদিও পুলিশ সেদিন কোন প্রকার বাধা দেয়নি বিএনপির অনশন কর্মসূচিতে।

comments

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here