জ্বালাও-পোড়াওয়ের নির্দেশ আসতো ফখরুলের কাছ থেকেও : রিজভী

0
3

শুধু জাতীয়ভাবেই নয়, আন্তর্জাতিকভাবেও প্রমাণ হয়েছে বিএনপি একটি সন্ত্রাসী, সাম্প্রদায়িক দল।

বিএনপির কর্মী হওয়ার কারণে একজন বাংলাদেশী নাগরিকের রাজনৈতিক আশ্রয়ের আবেদন নাকচ করে ইমিগ্রেশন কর্মকর্তা বলেন, ‘বিএনপি সন্ত্রাসী কাজে লিপ্ত ছিল, লিপ্ত আছে বা লিপ্ত থাকবে এটি বিশ্বাস করার অনেকগুলো কারণ আছে।বিএনপির ডাকা হরতাল বাংলাদেশের অর্থনীতিতে সবসময় উল্লেখযোগ্য ক্ষতিকর প্রভাব ফেলে। বিএনপি কর্মীদের হাতে বাংলাদেশের অনেক মানুষের মৃত্যু এবং আহত হওয়ার ঘটনা ঘটেছে। অতীতের অনেক সন্ত্রাসী ঘটনায় বিএনপির সম্পৃক্ততা পাওয়া গেছে এবং তারা এখনো সন্ত্রাসী তৎপরতার চালিয়ে যাচ্ছে।

তিনি বলেন, শুধুমাত্র এইসব কারণেই বিএনপির একজন কর্মী হিসেবে আবেদনকারী কানাডায় প্রবেশাধিকার পাওয়ার অনুপযুক্ত। কানাডার সরকার তার দেশের নিরাপত্তার কথা ভেবেই এই কর্মীর প্রবেশাধিকারে নিষেধাজ্ঞা জারি করেছে।

এ প্রসঙ্গে বিএনপিতে মিশ্র প্রতিক্রিয়ার সৃষ্টি হয়েছে। বিএনপির স্থায়ী কমিটির নেতা মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেন, খালেদা জিয়ার দায়িত্ব জ্ঞানহীনতাই দলের অধঃপতনের মূল কারণ। তিনি মোটেও দল নিয়ে ভাবেন না। তিনি অনেকটা গা-ছাড়া ভাবেই দলের এইসব ব্যাপার এড়িয়ে চলেন।

ফখরুলের বক্তব্য প্রসঙ্গে রিজভীর কাছে জানতে চাওয়া হলে তিনি জানান, “লোকটা দিন দিন উদ্ভট আচরণ শুরু করেছেন। দল কিভাবে চলবে এই সিদ্ধান্ত তিনিও নেয়ার ক্ষমতা রাখেন তবে কেনো তিনি খালেদা জিয়াকে একা দোষারোপ করছেন। জ্বালাও-পোড়ায়ের নির্দেশ কি তিনি দেননি? খালেদা জিয়া একাই দিয়েছিলেন?”

নাম প্রকাশ না করার শর্তে বিএনপির সিনিয়র এক নেতা জানান, দলের ভিতরে যতো অপরাধ হয় তার সব কিছুর নেপথ্যেই থাকেন তারেক জিয়া। দলের এতোটা খারাপ অবস্থার জন্য তিনিই অনেকাংশে দায়ী। বিএনপির যারাই মাদক ব্যাবসার সাথে জড়িত তাদের সবাইকেই মোটা অঙ্কের একটা ভাগ লন্ডনে তারেক রহমানকে পাঠাতে হয়।

বিএনপির বর্তমান অবস্থা দিন দিন শোচনীয় পর্যায়ে চলে গেছে। দলের কাঠামো ভেঙ্গে গেছে অনেক আগেই। হাই কমান্ডের এদিকে কোন মনযোগ নেই। তারা নিজেদের আখের গোছাতেই ব্যস্ত। স্থায়ী কমিটির অনেক নেতাই বিএনপি ছাড়ার কথা ভাবছেন বলে বাংলাদেশ টাইমসকে জানিয়েছেন তিনি।

comments

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here