হেফাজত নেতাদের মামুনুলের হুমকি

0
8

নারী কেলেংকারী দায়ে দল থেকে মামুনুলের ব্যাবস্থা নিলে দলের সব নেতাদের চরিত্রের গোমর ফাঁস করে দিবেন বলে দলের মিটিংয়ে প্রকাশ্য হুমকী দিয়েছেন হেফাজতের শীর্ষ নেতা মামুনুল হক। অতি সম্প্রতি নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁওয়ের রয়্যাল রিসোর্টে নারীসহ বেড়াতে গিয়ে স্থানীয় জনগণের রোষানোলে পড়ে হেফাজতে ইসলামের কেন্দ্রীয় যুগ্ম মহাসচিব ও ঢাকা মহানগরের সাধারণ সম্পাদক মাওলানা মামুনুল হক। শনিবার বিকাল ৩টায় সোনারগাঁওয়ের রয়্যাল রিসোর্টের ৫০১ নম্বর কক্ষে তাকে অবরুদ্ধ করা হয়। এরপর থেকেই একের পর এক নারী কেলেঙ্কারির খবর মিডিয়ার সামনে আসতে শুরু করে। এখন পর্যন্ত অসংখ্য ফোনালাপ সহ তার তথাকথিত তিনজন নারীর সাথে সম্পর্কের কথা জানা গেছে।

ইতিমধ্যে সংগঠনটির কেন্দ্রীয় নেতাদের কর্মকাণ্ড দেশব্যাপী সমালোচনায় মুখর। মামুনুল হকের রিসোর্টকান্ড ও দেশব্যাপী হেফাজতের সহিংসতায় তাদের শীর্ষ নেতাদের সঙ্গে বৈঠক অনুষ্ঠিত হয় ১২ এপ্রিল সোমবার দুপুরে। এসব সমস্যা নিরুপণে হেফাজতের শীর্ষ নেতাদের ইচ্ছে ছিলো মামুনুলকে হেফাজত থেকে বহিষ্কার। কিন্তু এর পরেই বাঁধে বিপত্তি। মামুনুল বেছে নেয় ব্ল্যাকমেইলিং এর পথ। তাকে বহিষ্কার করা হলে শীর্ষ আরো অনেক নেতার গুমোর ফাঁস করে দিবেন বলে প্রকাশ্যে হুমকি দেন তিনি।

নাম উল্লেখ করে কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক মাওলানা আজিজুল হক ইসলামাবাদীর সাথে একাধিক নারীর সম্পর্কের কথা ফাঁস করার ইঙ্গিত দেন মামুনুল। তিনি ছাড়াও আর বেশ কিছু হেফাজত নেতার বেশ কিছু অনৈতিক সম্পর্কের ছবি ও ভিডিও তার কাছে রয়েছে বলেও জানান তিনি। যদি তাকে কমিটি থেকে বাদ দেয়া হয় তবে সবার গোমড় একবারে ফাঁস করার হুমকি দেন মামুনুল। এরপরেই হেফাজতের কেন্দ্রীয় নেতারা মামুনুলকে বাদ দেয়ার সিদ্ধান্ত থেকে সরে এসে কোন সিদ্ধান্ত নেয়নি সভায়।

উল্লেখ্য, হেফাজতে ইসলামের সর্বোচ্চ নেতা, হাটহাজারী মাদ্রাসার দীর্ঘদিনের মহাপরিচালক আল্লামা শাহ আহমদ শফীর মৃত্যুর পর থেকে হেফাজত নেতাদের লাগামহীন চরিত্র একে একে সবার সামনে আসতে থাকে।

comments

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here