লন্ডনে ভাড়া বাড়িতে খালেদা, ফিরছেন না দেশে!

0
1

খালেদা জিয়ার লন্ডনে বাড়ি ভাড়ার খবরে বিএনপির নেতাকর্মীদের মধ্যে হতাশা বিরাজ করছে।  বিএনপি বিলীন হয়ে গেছে তাই এমন সিদ্ধান্ত নিতে বাধ্য হয়েছেন সদ্য রাজনৈতিক দেউলিয়া হওয়া দল বিএনপি নেত্রী খালেদা জিয়া।

শনিবার লন্ডনের এক রিপোর্টার জানান, নিত্য প্রয়োজনীয় সকল আসবাবপত্র নিয়ে তিনি উঠেছেন সেই বাসায়।

তিনি আরো বলেন,  খালেদা জিয়া লন্ডনে গিয়ে ভিন্ন সন্ত্রাসী গোষ্ঠীর সঙ্গে বৈঠক করেছেন বলেও খবর আছে আমাদের কাছে। চোখের চিকিৎসার কথা বলে খালেদা জিয়া সেখানে বসে মূলত দেশের বিরুদ্ধে,সরকারের বিরুদ্ধে নানা ষড়যন্ত্রের জাল বুনছেন।

বিএনপির বারবারই দেশের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র করেছে। আওয়ামী লীগ শেখ হাসিনার নেতৃত্ব সব সময় ষড়যন্ত্র মোকাবেলা করেই দেশের মানুষের কল্যাণে কাজ করে যাচ্ছে। আর সেই কাজের জন্য শেখ হাসিনাকে বিশ্বদারবার থেকে প্রশংসাও করা হচ্ছে।

সাবেক এই মন্ত্রী বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দেশের জন্য সম্মান বয়ে নিয়ে এলেও কিছু মানুষ আছেন যার তা মানতে পারছেন না। জার্মানিতে যেখানে লোকালয়ে কয়লা ভিত্তিক বিদ্যুত কেন্দ্র হয় সেখানে সুন্দরবন থেকে ১৮ কিলোমিটার দূরের বিদ্যুৎ কেন্দ্রে পরিবেশ বিপর্যয় নিয়ে তাদের মায়া কান্না। লং মার্চের নামে শীত এলেই পিকনিক করার আয়োজন করেন। পৃথিবীর সর্ব শেষ জ্ঞান বিজ্ঞান নিয়ে তাদের কোনো পড়াশোনা নেই।

তিনি বলেন, শেখ হাসিনা কখনই জীব বৈচিত্র ধ্বংস করেন না। সৃষ্টি করেন। যার প্রমাণ বিশ্বসভা (জাতিসংঘ) থেকে তার চ্যাম্পিয়ান অব দা আর্থ পুরস্কার অর্জন।

খাদ্যমন্ত্রী অ্যাডভোকেট কামরুল ইসলাম বলেন, অনেকেই আজ শেখ হাসিনার অর্জনে ঈর্ষাকাতর। সুন্দরবন নিয়ে তাদের প্রেম। কিন্তু শেখ হাসিনার প্রেম পুরো বাংলাদেশের জন্য। প্রধানমন্ত্রী চ্যাম্পিয়ান অব দ্যা আর্থ পুরস্কারের জন্য যোগ্য নান এমন কথা বলার দৃষ্টতাও দেখান তারা। আনু মোহাম্মদদের মনে রাখা উচিত শেখ হাসিনা সুন্দরবনেকে তাদের চেয়ে বেশি ভালোবাসেন। তাই মায়ের চেয়ে মাসির বেশি দরদ দেখানো কোনো প্রয়োজন নেই।

মহানগর আওয়ামী লীগের এই যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক বলেন, অনেকেই আজ শেখ হাসিনার অর্জনকে ম্লান করতে ব্যস্ত হয়ে পরেছেন। নতুন করে দেশের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র শুরু করেছেন। আসন্ন দুর্গাপূজাকে কেন্দ্র করে নতুন ভাবে ষড়যন্ত্র করছেন। ধর্মীয় সম্প্রীতি নষ্ট করতে চাইবেন। তাই সবাইকে সজাগ থাকতে হবে। বিএনপির নেতাদের মধ্যে এখন হাতাশা দেখা দিয়েছে। তাদের নেত্রী দেশে ফিরেন কি-না তা তারা নিশ্চিত নন।

কামরুল বলেন, খালেদা জিয়া আজ মামলার ভয়ে ভীত। তাই তিনি দেশ ছেড়ে বিদেশে আছেন। তার মামলাগুলোর ভবিষ্যৎ তিনি জানানে। তাই ষড়যন্ত্রের পথ খুঁজছেন। কিন্তু খালেদা জিয়ার কোনো ষড়যন্ত্রেই সফল হবে না। তিনি জ্বালাও পোড়াও করেও সফল হতে পারেননি এখানো হতে পারবেন না। দেশে মধ্যবর্তি নির্বাচন হবে না। আগামী নির্বাচনেও জনগণ শেখ হাসিনার পক্ষেই গণরায় দেবে। তার পাশেই থাকবে।

সংগঠনের সভাপতি ব্যারিস্টার জাকির আহম্মদের সভাপতিত্বে আরও বক্তৃতা করেন, সুজিত রায় নন্দী, অ্যাডভোকেট শামসুল হক টুকু, অ্যাডভোকেট বলরাম পোদ্দার, হাসিবুর রহমান মানিক প্রমুখ।

comments

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here